Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/timesi/public_html/wp-content/themes/covernews/lib/breadcrumb-trail/inc/breadcrumbs.php on line 254

ঢাকার হাসপাতালগুলোতে আইসিইউর শয্যার সংকট

টাইমস আই বেঙ্গলী ডটনেট, ঢাকা : বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার হাসপাতালগুলোতে আইসিইউর শয্যার সংকট দেখা দিয়েছে। করোনার সংক্রমণ ও রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় আইসিইউর এক একটি শয্যা যেন সোনার হরিণ। সরকারি হাসপাতালে তুলনামূলক খরচ কম হওয়ায় করোনা আক্রান্ত মুমূর্ষু রোগীদের স্বজনরা রোগী নিয়ে সরকারি হাসপাতালে যাচ্ছেন কিন্তু কোথাও শয্যা খালি না পেয়ে এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতালে ছুটে বেড়াচ্ছেন। বেসরকারি হাসপাতালেও আগের তুলনায় আইসিইউ ভর্তিচ্ছু রোগীর চাপ অনেক বৃদ্ধির ফলে খালি আইসিইউ শয্যা প্রতিদিনই কমছে।
ঢাকায় করোনা ডেডিকেটেড ঘোষিত হাসপাতালে মোট আইসিইউ শয্যার সংখ্যা ১০৮টি। তার মধ্যে ১০৪টি শয্যায় রোগী ভর্তি রয়েছে। ফলে মাত্র চারটি শয্যা খালি রয়েছে। বেসরকারিভাবে করোনা ডেডিকেটেড ৯টি হাসপাতালে আইসিইউ শয্যা সংখ্যা ১৮৮টি। তার মধ্যে রোগী ভর্তি রয়েছে ১৪৪টিতে। ফলে দুই কোটি জনসংখ্যার এই রাজধানীতে বর্তমানে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল মিলিয়ে মাত্র অর্ধশতাধিক আইসিইউ শয্যা ফাঁকা রয়েছে। বেসরকারি হাসপাতালে একটি আইসিইউ বেডে প্রতিদিন অর্ধলাখের বেশি টাকা বিল পরিশোধের কথা শুনে অনেকে সেখানে রোগী ভর্তি করাতে সাহস পান না।
রাজধানীর ১০টি করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের মধ্যে উত্তরার কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালের ১৬টি আইসিইউ শয্যার ১৬টিতে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের ১৬টি শয্যার ১৬টিতে, ৫০০ শয্যার কুর্মিটোলা হাসপাতালের ১০টি শয্যার ১০টিতে, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১০টি শয্যার ১০টিতে, সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের ছয়টির ছয়টি, মুগদা জেনারেল হাসপাতালের ১৯টি শয্যার ১৯টিতেই রোগী ভর্তি রয়েছেন। ২৫০ শয্যার শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালের ১৬টির মধ্যে ১৪টিতে রোগী ভর্তি অর্থাৎ দুটি বেড ফাঁকা রয়েছে। আর রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালের ১৫টির মধ্যে ১৩টিতে রোগী ভর্তি রয়েছেন। অর্থাৎ সেখানে দুটি শয্যা ফাঁকা রয়েছে। সরকারি হাসপাতালে দুই হাজার ৪৬১টি সাধারণ শয্যায় এ মুহূর্তে রোগী ভর্তি দুই হাজার ১২৭ জন।
অন্যদিকে বেসরকারি হাসপাতালে আইসিইউ ১৮৮টি শয্যায় রোগী ভর্তি ১৪৪টিতে। আইসিইউ শয্যা ফাঁকা মাত্র ৪৪টি। নয়টি হাসপাতালের মধ্যে ধানমন্ডির আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালের ৩০টি আইসিইউ বেডের ২২টিতে, আসগর আলী হাসপাতালে ৩২টির ২০টিতে, স্কয়ার হাসপাতালের ১৯টির ১৩টিতে, ইবনে সিনা হাসপাতালের পাঁচটির চারটিতে, ইউনাইটেড হাসপাতালের ২২টির ১৪টিতে, এভার কেয়ার হাসপাতালের ৪০টির ৩৪টিতে, ইমপালস হাসপাতালের ৩৫টির ৩২টিতে, এ এম জেড হাসপাতালের ১০টির আটটিতে এবং বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালের নয়টির নয়টিতেই রোগী ভর্তি রয়েছেন। রাজধানীর বেসরকারি নয়টি হাসপাতালে ৯২৮টি সাধারণ শয্যায় রোগী ভর্তি রয়েছে ৫২৮টিতে।
সম্প্রতি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। রোগতত্ত্ব ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশের শতভাগ মানুষ মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধিসমূহ মেনে না চললে করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধ করা দুরূহ হয়ে পড়বে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. সায়েদুর রহমান সপ্তাহখানেক আগে করোনার সংক্রমণ আরো বৃদ্ধির আশঙ্কা ব্যক্ত করে বলেছিলেন, করোনার সংক্রমণ এখনো প্রতিরোধ করা না গেলে হাসপাতাল গুলোতে রোগীর চাপ সামাল দেয়া মুশকিল হয়ে পড়বে।
এদিকে দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪৫ জনসহ মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে আট হাজার ৯৯৪ জন। একই সময়ে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন পাঁচ হাজার ৪২ জন। এ নিয়ে শনাক্ত হওয়া মোট রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ছয় লাখ পাঁচ হাজার ৯৩৭ জন।

 

print

Leave a Reply