প্রিন্ট প্রিন্ট

পল্লবীতে ভূমিদস্যুরা জমি দখলে নেয়ার পাঁয়তারা: ব্যবসায়ী ডিএসপি বাবুকে সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী বানানোর অপচেষ্টা

টাইমস আই বেঙ্গলী ডটনেট, ঢাকা: রাজধানীর পল্লবীতে ২০ কাঠা জমি ক্রয় করে বিপাকে পড়েছেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মো. আরিফুল ইসলাম ওরফে ডিএসপি বাবু। তিনি ২০ কাঠা জমি ক্রয় করে দখলে নেয়ার পর ভূমিদস্যুরা জাল দলিল তৈরি করে প্রায় ১০ কাঠা জমি দখল করে নিয়েছে। ভূমিদস্যুদের দখলবাজিতে বাধা দিলে মিথ্যা মামলা দিয়ে তাকে হয়রানি করছে। এছাড়াও আন্ডারগ্রাণ্ড অনলাইন নিউজ পোর্টালে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছে। তাকে সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী বানানোর চেষ্টা করছে। এ ব্যাপারে তিনি ঊধ্বর্তন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সূত্র জানায়, রাজধানীর পল্লবী থানা এলাকায় ভূমিদস্যুরা জাল দলিল তৈরি করে সাধারণ লোকজনের জমি ও বাড়ি দখল করে নিচ্ছে। জালিয়াত চক্রে সদস্য ও ভূমিদস্যু কাজী হারুন অর রশিদ ও কাজী জহিরুল ইসলামের অত্যাচারে পল্লবী থানা এলাকার লোকজন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। কাজী জহিরুল ইসলাম ও হারুন অর রশিদ এবং তাদের লোকজন জালজালয়াতির মাধ্যমে ব্যবসায়ী, আওয়ামী লীগ নেতা ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল টাইমস ২৪ ডটনেটের উপদেষ্টা মো. আরিফুল ইসলামের ২০ কাঠা জমির পুরোটাই দখল করে নেয়ার চেষ্টা করছে।
অভিযোগে জানা গেছে, পল্লবী থানার ৫নং পলাশ নগরের স্থায়ী বাসিন্দা মরহুম অহিদ মোল্লার মেয়ে নূরুন নাহার পৈতৃক সম্পত্তি ২০ কাঠা জমি বিক্রি করেন কাফরুল থানার ৬ নং পশ্চিম বাইশটেকীর স্থায়ী বাসিন্দা হচ্ছেন মো. আরিফুল ইসলাম ওরফে ডিএসপি বাবুর কাছে। জমির প্রকৃত মালিক নূরুন নাহার গত ৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ ইং তারিখে দলিল করে দেন আরিফুল ইসলামকে। দলিল নম্বর হচ্ছে ৯৭৮। নূরুন নাহার জমি বুঝিয়ে দেন আরিফুল ইসলামকে। এর মধ্যে মোসাম্মদ রাবেয়া খাতুন নামে এক মহিলা উক্ত জমির দলিল করে দেন কাজী হারুন অর রশিদকে। অথচ রাবেয়া খাতুন নামে কাউকে চিনেন না জমির প্রকৃত মালিক নূরুন নাহার। রাবেয়া খাতুন নামে যে মহিলা জমি দলিল করে দিয়ে তা জাল দলিল হিসাবে দাবি করেছেন নূরুন নাহার। জাল দলিলের মাধ্যমে ভূমিদস্যু হারুন অর রশিদ ও কাজী জহিরুল ইসলাম ২০ কাঠা জমির মধ্যে প্রায় ১০ কাঠা দখল করে নিয়েছে। বর্তমানে জমির মালিক মো. আরিফুল ইসলামকে ভূমিদস্যু ও সন্ত্রাসীরা প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। বাকি জমি দখল করে নেয়ার জন্য পাঁয়তারা করছে স্থানীয় সন্ত্রাসী ও ভূমিদস্যুরা। এছাড়াও ভূমিদস্যু কাজী জহিরুল ইসলাম ও হারুন অর রশিদ মিথ্যা মামলা দিয়ে ওই জমি দখল করে নেয়ার হুমকির পাশাপাশি অনলাইন নিউজ পোর্টালে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করছে। সব জমি দখলে নিতে ব্যর্থ হয়ে কাজী জহিরুল ইসলাম ও হারুন অর রশিদ মিলে ব্যবসায়ী আরিফুল ইসলামকে মাদক ব্যবসায়ী, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ ও ভ‚মিদস্যু বানানোর জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। এসব ব্যাপারে তিনি দুই দফায় বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন। এছাড়াও তিনি জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সংশ্লিষ্ট থানায় একাধিক জিডি করেছেন। বর্তমানে জমির মালিক ও ব্যবসায়ী আরিফুল ইসলাম জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী আরিফুল ইসলাম স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইজিপি, পুলিশ কমিশনার, মিরপুর জোনের ডিসি ও প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ

চিত্র নায়িকা মুনমুনের স্বপ্ন ছিলো চলচ্চিত্র পরিচালক হবার !

কড়া নিরাপত্তায় নগরীতে থার্টিফাস্ট নাইট !