সন্ত্রাসী ও ভূমিদস্যুদের কারণে সংবাদ সম্মেলন করতে পারলেন না নূরুন নাহার বেগম

টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: গত ১৬ অক্টোবর’২০১৯ইং বুধবার বেলা সাড়ে ১২টায় সাংবাদিক সম্মেলন করতে পারেনি ভুক্তভোগী মোসাম্মদ নূরুন নাহার বেগম। তিনি ৪র্থ বারের মতো ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সাংবাদিক সম্মেলনের অায়োজন করেছিলেন। কিন্তু মিরপুর-পল্লবীর ভূমিদস্যু, চাঁদাবাজ ও জুয়ার বোর্ড পরিচালনাকারী একজন কাউন্সিলর তাকে সাংবাদিক সম্মেলন করতে বাঁধা দেন। তাকে হত্যার হুমকি দেয় সন্ত্রাসী ও ভূমিদস্যুরা। বর্তমানে তাদের হুমকিতে আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।
তিনি বলেন, আমার নাম মোসাম্মদ নূরুন নাহার, পিতা মৃত অহিদ মোল্লা, ৫নং পলাশনগর, পল্লবীর একজন বাসিন্দা। আমার পলাশ নগরে রেকর্ড মহানগর খতিয়ান নং ১৬৫১, দাগ নং-১৫৬৪২, জমির পরিমান ৩৩ শতাংশ বা ২০ কাঠা। চিহিৃত ভূমিদস্যু, চাঁদাবাজ ও জুয়ার বোর্ড পরিচালনাকারীরা জাল দলিল তৈরি করে জোরপূর্বক ৯ কাঠা জমি দখলের মাধ্যমে বিভিন্ন মানুষের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে। এর মধ্যে শাপলা সমিতির কাছে ৮০ লাখ টাকায় ৫ কাঠা জমি, আকলিমা বেগমের কাছে ৪০ লাখ টাকায় ২ কাঠা জমি, মুফতি মাওলানা শেখ রেজাউল করিমের কাছে ৪০ লাখ টাকায় ২ কাঠা জমি বিক্রি করে দিয়েছে। আমি কোর্টে একটি মামলা করি। পিটিশন মামলা নং ৬৪৩/২০১২ যা কোর্টে আমার পক্ষে রায় দিয়েছে। কোর্টের রায় আমার পক্ষে থাকার পরেও ৯ কাঠা জমি না ছেড়ে উল্টো বাকি জমি দখল করে নেয়ার জন্য আমাকে ও আমার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী লেলিয়ে দিয়েছে। এছাড়াও মিথ্যা মামলায় হয়রানি করছে। প্রতিনিয়তই সন্ত্রাসীরা হত্যার হুমকি দিচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট দফতর ও থানায় অভিযোগ থাকার পরেও পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছে না। এই ভূমিদস্যু ও চাঁদাবাজ সিন্ডিকেটের কাছে মিরপুর-পল্লবীবাসী জিম্মি হয়ে পড়েছে।
উক্ত ঘটনায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, আইজিপি, পুলিশ কমিশনার, ডিবি ডিসি, র‌্যাব-৪, র‌্যাব সদরদফর ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে একাধিক অভিযোগ জমা পড়ার পরেও তাদের বিরুদ্ধে রহস্যজনক কারণে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। তিনি প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

print

Leave a Reply