Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/timesi/public_html/wp-content/themes/covernews/lib/breadcrumb-trail/inc/breadcrumbs.php on line 254

প্রজেক্ট হিলসার আদ্যোপান্ত

আশিফুল ইসলাম জিন্নাহ: পদ্মা পাড়ের নিকটবর্তী এবং মাওয়াঘাট যাবার পথে এক মনোরম লোকেশানে ইলিশ মাছের আকৃতির ন্যায় প্রজেক্ট হিলসা রেস্টুরেন্টটি পদ্মা ব্রিজের পর্যটন স্পট, বিদেশী পর্যটক এবং বিত্তশালী শ্রেণিদের টার্গেট করে গড়ে তোলা হয়েছে। এর মূল আকর্ষন পদ্মার ইলিশ মাছ এবং ইলিশ মাছের চৌদ্দ পদ। তবে প্রথম থেকেই প্রজেক্ট হিলসার ইলিশ মাছ, খাবারের দাম, মান এবং সার্ভিস নিয়ে অনেক কাস্টমার বিক্ষুদ্ধতা, আর বিরূপ প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করেছে। সমালোচনাকারীদের দায়িত্ব গঠনমূলভাবে সমালোচনা করা, ভুল-ত্রুটিগুলো সুস্পষ্টভাবে দেখিয়ে দেয়া এবং সেগুলো দূরীকরণের বাস্তবসঙ্গত পরামর্শ দেয়া।

প্রজেক্ট হিলসায় পর্যাপ্ত ফ্রি কার পার্কিং এর সুব্যবস্থা রয়েছে। কাস্টমারদের প্রধান অভিযোগ খাবারের দাম বাজার মূল্য এবং খাবারের মান অনুপাতে বেশি। এ ব্যাপারে আমার ব্যক্তিগত অভিমত, এরকম দামী কোন রেস্টুরেন্টে গিয়ে এর খাবারের দাম সাধারণ বাজার মূল্য এবং কম দামী রেস্টুরেন্টের মেন্যুর প্রাইজ দিয়ে যাচাই করা সঠিক এবং যুক্তিসঙ্গত না। কারণ প্রজেক্ট হিলসার মেইন্টেনেন্স খরচ এবং স্টাফদের বেতন সাধারণ রেস্টুরেন্টগুলো থেকে স্বাভাবিকভাবে অনেক বেশি। এসব ব্যাপার বুঝতে হবে।

প্রজেক্ট হিলসার সার্ভিস রেস্টুরেন্টের মান অনুযায়ী মোটেও ভাল সার্ভিস না। অনেকক্ষেত্রেই তারা কাস্টমারদের খাবার অর্ডার নিতে এবং অর্ডার সার্ভ করতে বেশ দেরি করে। আর আমি সেখানে গিয়ে দেখেছি হিলসা রেস্টুরেন্টের ওয়েটাররা ৩/৪জন একত্রিত হয়ে গল্প করতে, আড্ডা মারতে ব্যস্ত থাকে। আনমনে এদিকওদিক ঘুরাঘুরি করে। ফলে তাদের কাছ থেকে কাস্টমাররা ভাল সার্ভিস পাচ্ছে না। এজন্য এই ব্যাপারে প্রজেক্ট হিলসার মেনেজমেন্ট অথরিটিকে কঠোর হতে হবে এবং রেগুলার মনিটরিং-এর ব্যবস্থা করতে হবে।

প্রজেক্ট হিলসা ম্যানেজমেন্টের উচিত সার্ভিস চার্জ ১০% থেকে ৫% -এ হ্রাস করে সাধারণ গ্রাহকদের উপর বিলের চাপ কমাবার ব্যবস্থা করা। এর মূল আকর্ষন পদ্মার ইলিশ মাছ, ইলিশ মাছের পদগুলোর দাম এবং মান অবশ্যই সঠিক এবং সহনীয় পর্যায়ে রাখা। পদ্মার ইলিশের নামে অন্য জেলার অন্য নদীর ইলিশ বিক্রির ব্যাপারটি অবশ্যই গ্রহনযোগ্য না। প্রতি প্লেট ভাতের দাম ১০০ টাকা হলেও ভাতের চাল স্বাভাবিক মানের। এক্ষেত্রে সাধারণ মানের চালের স্থলে বাঁশমতি চাল হওয়া উচিত ছিল। নয়ত এর মূল্য ৫০ টাকাই হওয়া উচিত।

প্রজেক্ট হিলসা উচ্চমধ্যবিত্ত এবং উচ্চবিত্ত শ্রেণির গ্রাহকদের জন্য এফোর্টেবল হলেও দেশের মধ্যবিত্ত শ্রেণির জন্য মোটেও কমফোর্টেবল নয়। এজন্যই অনেকে বলেছে প্রজেক্ট হিলসা বিত্তশালীদের জন্য করা হয়েছে সাধারণ মধ্যবিত্তদের জন্য না। অথচ মধ্যবিত্তরাই দেশের মূল জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করে। তাই দেশের বিশাল মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষের আর্থ- সামাজিক অবস্থা এবং সামর্থ্যের ব্যাপারটিকে বিবেচনায় নিতে হবে। একই সাথে কাস্টমারদের উচিত মেন্যুর প্রাইজ দেখে এবং বুঝে খাবার অর্ডার করা।

প্রজেক্ট হিলসার কাঁচঘেরা বিশাল অত্যাধুনিক ওপেন কিচেনে সবার সামনেই সেফরা খাবার তৈরি করছে। এর সামনে ডিপফ্রিজে টাটকা পদ্মা, চাটগাঁর ইলিশ মাছ রাখা আছে। কিছু নিউজ রিপোর্ট হয়েছে যে, প্রজেক্ট হিলসার কর্মচারীদের জন্য টয়লেটে নাকি সাবানের ব্যবস্থা নেই। এজন্য তারা নাকি টয়লেট শেষে সাবান ব্যবহার করার সুবিধা পান না। যদিও এর সত্যতা নিয়ে অনেকে সন্দিহান। কারণ কর্মচারীরাও তো মানুষ। তারা নিশ্চয়ই পরিচ্ছন্ন থাকতে চান। এরূপ নিউজের প্রেক্ষিতে রেন্টুরেন্টের স্টাফদের পরিষ্কার- পরিচ্ছন্ন থাকার ব্যাপারটি রেগুলার মনিটরিং -এ রাখতে হবে।

প্রজেক্ট হিলসা দেশের সবচেয়ে বড় রেস্টুরেন্ট হিসাবে স্বীকৃতি লাভ করেছে এবং ভোজন রসিকদের মধ্যে ব্যাপক কৌতুহল সৃষ্টি করেছে। রেস্টুরেন্ট ব্যবসা যেহেতু একটা সেবামূলক ব্যবসা তাই প্রজেক্ট হিলসা মেনেজমেন্ট অথরিটির উচিত প্রজেক্ট হিলসাকে সাময়িক সময়ের জন্য না দেখে দীর্ঘমেয়াদী বাণিজ্যিক দৃষ্টিকোন থেকে দেখা। মানবিক দিক বিবেচনায় এবং দীর্ঘমেয়াদী ব্যবসায়িক স্বার্থে দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের আর্থ-সামাজিক অবস্থা বিবেচনা করা এবং প্রজেক্ট হিলসাকে মধ্যবিত্তশ্রেণির সামর্থ্য উপযোগী করার উদ্যেগ নেয়া। ©asifuljinnah@gmail.com
#Asiful_Islam
#Good_Luck_Bangladesh
#positivityonly

print

Leave a Reply