প্রিন্ট প্রিন্ট

বিএনপিকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়ার আহ্বান ১৪ দলের

টাইমস আই বেঙ্গলী ডটনেট, ঢাকা: বিএনপিকে আগামী নির্বাচনে অংশ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে ১৪ দলের মুখপাত্র স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, আমরা চাই, শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন হোক। নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত হোন। পানি ঘোলা করার চেষ্টা করবেন না। এটা করে লাভও হবে না। রাজধানীর ধানমণ্ডির প্রিয়াংকা কমিউনিটি সেন্টারে শনিবার কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।
বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, কোনোভাবেই কেউ নির্বাচন ঠেকাতে পারবে না। হুমকি দেবেন না, প্রতিনিয়ত হুমকির কথা বলার কারণে এটা খেলো হয়ে গেছে। হাস্যরসের উপাদান সৃষ্টি করছে। তিনি বলেন, হতাশায় না থেকে এ নির্বাচনে আসুন। আন্দোলন করে বা নির্বাচন করে আপনাদের নেত্রীকে মুক্ত করুন, আমাদের কোনো আপত্তি নেই। আমরা নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত আছি। দেশবাসী এখন দিন গুনছে, কখন সেই নির্বাচনটি হবে। জনগণ নিজেদের ইচ্ছা অনুযায়ী ভোট দিতে পারবে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, প্রায় সব দলই নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। কিন্তু শুধু বিএনপি-জামায়াত জোট নানারকম বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নানা রকম হুমকি দিচ্ছে। দেশ যখন নির্বাচনে প্রস্তুত হয়ে গেছে, যখন সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে, এটা মোটামুটি ঠিক হয়ে গেছে, তখন কী কারণে বিএনপি বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে, আমরা বুঝতে পারছি না।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে নাসিম বলেন, বিএনপি নেতারা যা বলেন সব হতাশা থেকে বলেন। হতাশা থেকেই তারা এ ধরনের হুমকি-ধমকি দেন। তাদের বলব, হতাশ না হয়ে নির্বাচনে আসেন।

এ সময় নাসিম আরও বলেন- রাজশাহী, নাটোর এবং খুলনায় ১৪ দলের জনসভা হবে। এর পরে আমরা নতুন কর্মসূচি নেব।

মির্জা ফখরুলের উদ্দেশে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আপনার নেত্রী আইন অনুযায়ী গ্রেফতার হয়েছেন। তাই আইনের পথ দেখুন। তার ব্যারিস্টার সহকর্মীরা কী করছেন এতদিন ধরে? এতদিনেও মুক্ত করতে পারলেন না? আপনাদের একজন ব্যারিস্টার নেতা আছেন। তিনি প্রতিদিন ঘোষণা করেন, মাস ঘোষণা করেন। একজন উকিল যখন মক্কেল ধরেন, তখন সব সময় বলে যান, তুমি বেঁচে যাবে। ওই ব্যারিস্টার নেতাও এখন একথা বলছেন, বিএনপিকে অক্সিজেন দিয়ে যাচ্ছেন। এ ধরনের ব্যারিস্টার ধরে লাভ হবে না।

মির্জা ফখরুলের বক্তব্যের সমালোচনা করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপির একজন নেতা বলেছেন, আওয়ামী লীগ নাকি দেউলিয়া হয়ে গেছে। দেউলিয়া কখন হয়? যখন কর্মী থাকে না, সংগঠন থাকে না? তখন দেউলিয়া হয়। আর বিএনপির অবস্থা কী? নেতাই নেই, এখন নেতা ভাড়া করতে হচ্ছে। তারাই দেউলিয়া হয়ে গেছে। এখন সেই দল যখন দেউলিয়ার কথা বলে, এটা তামাশা ছাড়া আর কিছুই নয়। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ চিরকালই জনগণের ভালোবাসায় বন্দি আছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১৪ দল জনগণের ভালোবাসায় বন্দি থাকবে, চিরদিনই বন্দি থাকবে।

এদিকে ১৪ দলের সভায় আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেন, নির্বাচন সামনে রেখে বিএনপি-জামায়াত নানা রকম ষড়যন্ত্র করছে, হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। তারা আবার দেশে হাওয়া ভবন তৈরি করতে চায়, সন্ত্রাসী, বোমাবাজি, জঙ্গিবাদের রাজত্ব কায়েম করতে চায়। দেশকে তারা বারবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন করেছিল, আবারও সেটা করতে চায়।

সভায় বাংলাদেশ জাসদের সভাপতি শরিফ নুরুল আম্বিয়া বলেন, বিএনপির প্রতিক্রিয়াশীল রাজনীতি প্রতিহত করতে হলে আমাদের তৃণমূল পর্যায়ে যেতে হবে। তৃণমূল পর্যায়ে ১৪ দলের কার্যক্রম বাড়াতে হবে।

জাতীয় পার্টির (জেপি) সাধারণ সম্পাদক শেখ শহীদুল ইসলাম বলেন, বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে গ্রাম, ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা পর্যায়ে ১৪ দলের কার্যক্রম নিয়ে যেতে হবে। সেখানে সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরতে হবে এবং বিএনপি-জামায়াতের অপরাজনীতি সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করতে হবে। জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন পর্যায়ে সমাবেশ করে, প্রচারপত্র বিলি করে বিএনপির ষড়যন্ত্র তৃণমূল পর্যায়ের মানুষের সামনে উন্মোচন করতে হবে।

ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরোর সদস্য আনিসুর রহমান মল্লিক বলেন, এ মুহূর্তে আমাদের মাঠে থাকাটা জরুরি। এজন্য বিভাগীয় ও আঞ্চলিক পর্যায়ে ১৪ দলের সমাবেশ করতে হবে। ৯ অক্টোবর রাজশাহীতে ১৪ দলের সমাবেশ সফল করার আহ্বান জানান তিনি। আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বিএনপি এখন এতই হতাশ যে তারা ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্ব মেনে নিয়েছে। এমন কথাও চালু আছে তারা ড. কামাল হোসেনকে প্রধানমন্ত্রী করতে চায়, বিএনপির কোনো প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী নেই। বিএনপির এ দুর্বলতাকে আমাদের রাজনৈতিকভাবে কাজে লাগাতে হবে।

সাম্যবাদী দলের সভাপতি দিলীপ বড়ুয়ার সভাপতিত্বে এ সভায় আরও বক্তব্য রাখেন তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারি, আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন, ন্যাপের সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, জাসদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাদের চৌধুরী প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ

চিত্র নায়িকা মুনমুনের স্বপ্ন ছিলো চলচ্চিত্র পরিচালক হবার !

কড়া নিরাপত্তায় নগরীতে থার্টিফাস্ট নাইট !